শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:৩২ অপরাহ্ন

আজ ১৩ সেপ্টেম্বর। সাপাহারে ২১ মুক্তিযুদ্ধা হারানোর দিন

জাহাঙ্গীর আলম মানিক: / ৪০ বার পঠিত
সময় : সোমবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৭:২৯ পূর্বাহ্ণ

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

১৯৭১ এর ১৩ সেপ্টম্বরে জেলার সাপাহারবাসীকে শত্রু মুক্ত করতে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে ২১জন বীর সেনা তাদের তাজা প্রান বিসর্জন দিয়েছিলেন। আর আহত হয়েছিলেন অনেকেই। তাই ১৩ সেপ্টেম্বর সাপাহারবাসীর জন্য ইতিহাসে ভয়াল দিন হিসেবে পরিচিত। প্রতিবছর এই দিনটি স্মরন করে অনেক সন্তান হারা মা, ভাই হারা বোন ও তাদের আত্মীয় স্বজনরা অঝোর ধারায় তাদের চোখের পানি ফেলেন।

মুক্তিযোদ্ধা ও এলাকার প্রবীন ব্যক্তিরা বলেন, দেশে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হওয়ার সাথে সাথে পাকহানাদার বাহিনী ও তার দোসররা সাপাহার সদরের পূর্বদিকে একটি পুকুর পাড় ও পাড় সংলগ্ন স্কুলে (বর্তমানে ঐতিহ্যবাহী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়) একটি শক্তিশালী ক্যাম্প স্থাপন করে এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। এখান থেকেই তারা এলাকার বিভিন্ন গ্রামে গিয়ে অসহায় মা-বোনদের সম্ভ্রমহানী নিরহী লোকদের ব্রাশফায়ার ও বাড়ী ঘরে অগ্নি সংযোগ করে থাকত।

দেশের এই প্রতিকূল অবস্থায় বর্বর হানাদার বাহিনীর কবল থেকে সাপাহারবাসীকে মুক্ত করার জন্য সাপাহার ও মহাদেবপুর এলাকার ৮০ জন মুক্তিযোদ্ধা দৃঢ় প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়ে তৎকালীন পাকহানাদার বাহিনীর লেঃ শওকত আলীর অধীন সাপাহারের ওই শক্তিশালী ক্যাম্পটিকে উৎখাত করার জন্য ১৩ সেপ্টেম্বর রাতে আক্রমন চালানের সিদ্ধান্ত গ্রহন করেন।

সিদ্ধান্ত মোতাবেক ওই দিন রাতে মুক্তিযোদ্ধা মেজর রাজবীর সিং এর আদেশক্রমে ও ইপিআর হাবিলদার আহম্মদ উল্লাহর নেতেৃত্বে ৮০ জন মুক্তিযোদ্ধার সংঘটিত দলটিকে ৩টি উপদলে বিভক্ত করে একটি দলকে সাপাহার-পত্নীতলা রাস্তার মধইল ব্রিজে মাইন বসানোর কাজে নিয়োজিত করা হয়, যাতে পত্নীতলা হতে শত্রু সেনারা সাপাহারে প্রবেশ করতে না পারে। অন্য একটি দলকে নিয়োজিত করা হয় সার্ব¶নিক টহল কাজে। আর মূল দলটি অবস্থান নেয় শত্রু শিবিরের একেবারে কাছাকাছি একটি ধানক্ষেতে।

ভাগ্যক্রমে বেঁচে যাওয়া যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা এসএম জাহিদুল ইসলাম, মনছুর আলী, আঃ রাজ্জাক বলেন, এতো সর্তকতার মধ্যেও মুক্তিযোদ্ধাদের আক্রমনের খবর পৌঁছে যায় পাকবাহিনীর নিকট। তাৎ¶নিক ভাবে পাকসেনারও যুদ্ধের প্রস্তুতি নিতে থাকে। চলতে থাকে উভয় পক্ষের মধ্যে যুদ্ধ। লড়াইয়ের একপর্যায়ে বীর মুক্তিযোদ্ধার দলটি যখন শত্রু সেনাদের প্রায় কোন ঠাসা করে ফেলেছিল।

ঠিক এমনি অবস্থায় ভোরের আভাস পেয়ে ব্রীজে মাইন বসানোর দলটি সেখান থেকে সরে পড়লে তার কিছুক্ষন পরই পত্নীতলা হতে অসংখ্য শত্রু সেনা আরোও ভারী অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সাপাহারে প্রবেশ করে। এরপর শত্রুপক্ষের অত্যাধুনিক ভারী অস্ত্রের মুখে হিমশিম খেয়ে এক সময় বাধ্য হয়ে পিছু হটতে হয় মুক্তিযোদ্ধাদের। এ সময় শত্রুপক্ষের গুলির আঘাতে বীর মুক্তিযোদ্ধা লুৎফর রহমান, আইয়ুব আলী, আব্দুল হামিদসহ ১৫ জন ঘটনাস্থলেই শাহাদাতবরন করেন। আহত হন মনছুর আলী, এসএম জাহিদুল ইসলাম, দলনেতা আহমদ উল্লাহ, সোহরাব আলী, নুরুল ইসলাম সহ অনেকে।

এছাড়া শত্রুদের হাতে জীবিত ধরা পড়েন আটজন মুক্তিযোদ্ধা। শত্রুরা আটক আটজনের মধ্যে চারজনকে পত্নীতলাতলার মধইল স্কুলের ছাদে তুলে কুপিয়ে হত্যা করে লাশগুলি নিচে ফেলে দেয়। আর দুই জনকে ধরে এনে মহাদেবপুরের একটি কূপে ফেলে দিয়ে জীবন্ত কবর দেয়। আজকের এই দিনের কথা স্মরণ করে অনেকে অঝোরে তাদের চোখের পানি ফেলেন। নিরবে ডুকরে ডুকরে কেঁদে ওঠেন।


সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

Theme Customized By Theme Park BD